Fri. Nov 16th, 2018

২০১৮ সালের সেরা ৫ টি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ – নতুনদের জন্য

প্রোগ্রামিং শেখার সময় নতুনদের মনে যে প্রশ্নটি আসে সেটা হচ্ছে কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটা শিখবো । বর্তমানে পৃথিবীতে প্রায় ৫০০ টিরও বেশি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে । আমাকে অনেকেই মাঝে মাঝে প্রশ্ন করে যে ভাইয়া কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটা শিখবো । ইউনিভার্সিটিতে অনেক প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ করানো হয় যেমন জাভা , সি , সি++ , এসেম্বলি ল্যাঙ্গুয়েজ কিংবা সি#  কিন্তু সেগুলোর মধ্যে কোন ল্যাঙ্গুয়েজ টা শিখতে হবে বা শিখা উচিৎ সেই বেপারটা নিয়ে নতুনদের মধ্যে একটা কনফিউশন কাজ করে। তাদেরকে উদ্দেশ্য করেই আমার আজকের লেখা । আসলে প্রত্যেকটা ল্যাঙ্গুয়েজেরই কোন না কোন সুবিধা অসুবিধা আছে । প্রত্যেকটা ল্যাঙ্গুয়েজই বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাবহার করা হয় । সব ল্যাঙ্গুয়েজ সবক্ষেত্রে ব্যাবহার করা যায় না কিংবা বলা যায় ব্যাবহার করাটা উচিৎ না । কারন প্রত্যেকটা ল্যাঙ্গুয়েজকেই কোন না কোন স্পেশাল কাজকে উদ্দেশ্য করে বানানো হয়েছে । তাহলে কোন ল্যাঙ্গুয়েজটা শিখা উচিৎ সেটা কিভাবে বুঝবো । ২০১৮ সালে যে ল্যাঙ্গুয়েজ গুলো নিয়ে কাজ হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি সেইগুলো নিয়েই আজকের পোষ্ট । তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক ।

১ ) জাভাস্ক্রিপ্ট ( JavaScript )

JavaScript
JavaScript

জাভাস্ক্রিপ্ট হচ্ছে বর্তমানে ওয়েবে ব্যবহৃত  সবচেয়ে জনপ্রিয় স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ । জাভাস্ক্রিপ্ট মূলত ওয়েবসাইটকে ইন্টারেক্টিভ করার জন্য ব্যাবহার করা হয়ে থাকে । বর্তমানে জাভাস্ক্রিপ্ট সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় ওয়েবসাইটের Frontend কে ডিজাইন করার জন্য ।জাভাস্ক্রিপ্টের জনপ্রিয় ফ্রেমওয়ার্ক গুলোর মধ্যে React JS , Angular JS , Vue JS সবচেয়ে বেশি ইউস হয় ।  তবে নেটিভ মোবাইল এপ্লিকেশন ডেভলাপ করার জন্যও জাভাস্ক্রিপ্টের জুড়ি নেই । React Native ব্যাবহার করে নেটিভ মোবাইল এপ্লিকেশন ডেভেলাপ করা যায় । তবে জাভাস্ক্রিপ্টের ব্যাবহার শুধুমাত্র Frontend কিংবা মোবাইলেই সীমাবদ্ধ নেই বরং সার্ভার সাইড প্রোগ্রামিং এর ক্ষেত্রেও এর ব্যাবহার চোখে পরার মতো । Node JS একটা সার্ভার সাইড জাভাস্ক্রিপ্ট ফ্রেমওয়ার্ক যার মাধ্যমে ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় । এখন কথা হচ্ছে চাকরীর বাজার কেমন ? জাভাস্ক্রিপ্টের শুধু বাংলাদেশেই না বরং বাইরের দেশ গুলোতেও অনেক চাহিদা । USA তে প্রতি বছর প্রায় ৩ লক্ষ জাভাস্ক্রিপ্ট প্রোগ্রামার এর প্রয়োজন পরে । আর বেতনের দিক দিয়ে জাভাস্ক্রিপ্ট অনেক বেশি এগিয়ে । একজন জাভাস্ক্রিপ্ট প্রোগ্রামারের গ্লোবাল বেতন বছরে প্রায় $ ১,০৮,৮০১ ডলার । তাই যদি কেউ ওয়েবে কাজ করতে চাও তাহলে দেরি না করে নির্দ্বিধায় জাভাস্ক্রিপ্ট শিখা শুরু করে দিতে পারো ।

২ ) জাভা ( Java Programming Language )

Java-Programming-Language
Java-Programming-Language

আমার লিস্টে আরেকটি বহুল ব্যবহৃত এবং আমার ব্যক্তিগত প্রিয় প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ হচ্ছে জাভা । জাভা বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ । Tiobe এর ইনডেক্স দেখলে বোঝা যায় যে জাভার পজিশন এবং জনপ্রিয়তা কতোটা । জাভা প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় Android Application Development এবং Enterprise Application Development ( Desktop কিংবা Web Application ) এর জন্য । জাভার উল্লেখযোগ্য কিছু সুবিধার মধ্যে রয়েছে প্লাটফর্ম  অনির্ভরতা ( Platform Independent ) অর্থাৎ জাভা দিয়ে লেখা প্রোগ্রাম যেকোনো প্লাটফর্মে অনায়াসে চালানো যায় । আরো কিছু বৈশিষ্ট্যের কথা না বললেই নয় তা হলো  জাভার স্কেলেবিলিটি , সিকিউরিটি এবং অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং এর সুবিধা ।জাভার তিনটা ভার্শন আছে Java SE ( Standard Edition ) , Java EE ( Enterprise Edition ) এবং  Java ME ( Micro / Mobile Edition ) । জাভা একটি কমপ্লিট অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং ভাষা অর্থাৎ এতে কাজ করতে হয় ক্লাস এবং অবজেক্ট নিয়ে । সারা দুনিয়ার এক নাম্বার প্রোগ্রামিং ভাষা জাভার চাকুরী কিংবা বেতনের  কথাটা আলাদা করে বলার কিছুই নেই । Spring , Hibernet এগুলো জাভার খুব জনপ্রিয় ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক যেগুলোর সাহায্যে খুব বড় মাপের ওয়েব এপ্লিকেশন বানানো যায় । JavaFX , Swing হচ্ছে জাভার ডেক্সটপ এপ্লিকেশন লাইব্রেরী যেগুলো দিয়ে অনায়াসে ডেক্সটপ এর জন্য Enterprise লেভেলের এপ্লিকেশন বানানো যায় ।আর তাছাড়া Oracle জাভার আপডেট এবং নতুন ভার্শন রিলিজ করার ক্ষেত্রে যথেষ্ট প্রতিজ্ঞাবদ্ধ । তাই যারা Android Application Development বা Enterprise Application Development ( Desktop / Web Application ) এ ক্যারিয়ার বানাতে চাও তারা জাভা শিখা শুরু করতে পারো ।

৩ ) পাইথন ( Python Programming Language )

python programming language
python programming language

আমার লিস্টে আরেকটি জনপ্রিয় প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ হচ্ছে পাইথন । পাইথন মূলত একটি স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ যেটি কিনা বর্তমানে  সবচেয়ে বেশি ইউস করা হয় Machine Learning , Deep Learning , Web Application Development, Data Analysis এর ক্ষেত্রে । পাইথন একাধারে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড এবং ফাংশনাল স্ক্রিপ্টিং  ল্যাঙ্গুয়েজ । পাইথনের ওয়েব ফ্রেমওয়ার্কের মধ্যে রয়েছে Django , Flask এই দুইটার মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হলো Django ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক । তাছাড়া ডেক্সটপ এপ্লিকেশনের জন্য লাইব্রেরী রয়েছে যেমন PyQT , Tkinter ইত্যাদি । Numpy দিয়ে সাইন্টিফিক  কাজ করা , Panda দিয়ে ডাটা এনালাইসিস এবং scikit দিয়ে মেশিন লার্নিং এর এলগোরিদম তৈরি করা যায় । সর্বোপরি বলতে গেলে পাইথনের ব্যাবহার হয় না এমন খুব কম ক্ষেত্রেই হয় । চাকরীর বাজার এবং সেলারি দুইটাই খুব ভালো । তাই পাইথনে ক্যারিয়ার গড়তে এখন থেকেই শিখা শুরু করতে পারো ।

৪ ) সি # (  C# Programming Language )

C# language
C# language

Microsoft এর এই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটি বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত ল্যাঙ্গুয়েজ গুলোর মধ্যে অন্যতম । এটি একটি পূর্ণাঙ্গ অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং  ল্যাঙ্গুয়েজ । এটি মূলত ইউস করা হয় Enterprise Desktop এবং Web Application Development এর জন্য  । তবে Windows Mobile Application বানানোর জন্যও এই ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যাবহার করা হয় । এছাড়াও Xamarin ব্যাবহার করে হাইব্রিড মোবাইল এপ্লিকেশন বানানো যায় যেটা কিনা Android , iOS এবং Windows সব ধরনের মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমে চালানো যায় । .NET Framework  এর উপর ভিত্তি করে বানানো এই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজটি চাকরীর বাজার বা বেতনের দিক থেকে অন্যদের থেকে পিছিয়ে নেই ।একটা কথা না বললেই না সেটা হচ্ছে C# প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শুধুমাত্র Windows প্লাটফর্মে কাজ করতে পারে ।  তবে যারা শুধু Windows প্লাটফর্মে কাজ করতে চাও তারা শিখতে পারো ।

৫ ) সুইফট ( Swift Programming Language )

swift-programming-language
swift-programming-language

Apple Inc. কোম্পানির তৈরি আরেকটি অসাধারণ প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ হচ্ছে Swift । এটি একাধারে ফাংশনাল এবং অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড ল্যাঙ্গুয়েজ । ল্যাঙ্গুয়েজটি রিলিজ হয় ২০১৪ সালে । Swift ল্যাঙ্গুয়েজ মূলত ব্যাবহার করা হয় নেটিভ iOS মোবাইল এবং ডেক্সটপ এপ্লিকেশন তৈরি করার জন্য । এই ল্যাঙ্গুয়েজটি তৈরি করা হয়েছে শুধুমাত্র অ্যাপল হার্ডওয়্যারকে প্রোগ্রাম করার জন্য । পূর্বে অবজেক্টিভ সি ( Objective C ) ল্যাঙ্গুয়েজ দিয়ে  আইফোন এবং ডেক্সটপ এপ্লিকেশন তৈরি করা হতো । তবে সুইফট অনেক উন্নত ল্যাঙ্গুয়েজ হওয়ার কারনে সব  প্রোগ্রামাররা এখন আইফোন কিংবা ডেক্সটপ এপ্লিকেশন তৈরি করার জন্য এটি ইউস করেন । iOS Application Developer দের খুবই চাহিদা এবং ডেভলাপার অনেক কম হওয়ার কারনে বেতন তুলনামূলক অনেক বেশি । একটাই প্রব্লেম সেটা হচ্ছে অ্যাপল হার্ডওয়্যার অনেক ব্যয়বহুল । তবে বাকি সবকিছুর দিকে লক্ষ্য করলে সুইফট প্রোগ্রামিং  ল্যাঙ্গুয়েজ শিখাটা ক্যারিয়ারের জন্য খুবই ভালো একটি সিন্ধান্ত হতে পারে ।

আরও অনেক ভালো প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ আছে  যেমন PHP যেটা কিনা ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় , নতুন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ Kotlin যেটা Android Application Development এর জন্য ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। তাছাড়াও ডাটাবেস প্রোগ্রামিং করার জন্য রয়েছে SQL ( Structured Query Language ) যেটা জানাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ ।

তো আজকে এই পর্যন্তই । ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

Comments

comments

1 thought on “২০১৮ সালের সেরা ৫ টি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ – নতুনদের জন্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: